যে ৭টি কারণে হয়তো কখনো বাবা/মা হতে পারবেন না - Bd Online News 24
Home » চিকিৎসা » যে ৭টি কারণে হয়তো কখনো বাবা/মা হতে পারবেন না

যে ৭টি কারণে হয়তো কখনো বাবা/মা হতে পারবেন না

যদি আপনি সন্তানের বাবা/মা হতে চান, তাহলে আপনার কিছু বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন হবে। আপনার উর্বরতাকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে এমন টি বিষয় নিয়ে আমাদের আজকের প্রতিবেদন।

কবিরাজ : তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদিক ঔষধের দ্বারা নারী- পুরুষের সকল জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – খিলগাঁও, ঢাকাঃ। মোবাইল : ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

১. ধূমপান: ধূমপান পুরুষ ও নারী উভয়ের উর্বরতাকে ক্ষতিগ্রস্ত করে, কিন্তু এটি বিশেষ করে নারীদের জন্য ক্ষতিকর। তামাকে ২৫০টিরও বেশি বাইপ্রোডাক্ট রয়েছে যা ওসাইট টক্সিক হিসেবে পরিচিত। এর প্রভাব এতই তীব্র যে এসব টক্সিন ডিম্বাশয়ের ফলিকলের ভেতরের ডিম্ব পরিবেশকে দূষিত করে। ধূমপান মেনোপজ ত্বরান্বিত করে আপনার উর্বর বছর কমিয়ে ফেলে। লস অ্যাঞ্জেলসে অবস্থিত সেন্টার ফর মেইল রিপ্রোডাক্টিভ মেডিসিন অ্যান্ড ভেসেক্টমি রিভার্সালের পরিচালক ফিলিপ ওয়ের্থম্যান বলেন, ‘পুরুষরাও ধূমপানের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে রেহাই পায় না। যেসব পুরুষেরা বাচ্চার বাবা হতে চায় তাদের ধূমপান করা উচিত নয়।’ সেকেন্ডহ্যান্ড স্মোকও কোনো পুরুষের স্ত্রীর উর্বরতাকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। ডা. ওয়ের্থম্যান বলেন, ‘পট স্মোকিংয়ের ক্ষেত্রে ক্ষতির পরিমাণ দ্বিগুণ। মারিজুয়ানা স্মোকিং ভয়াবহ। এটি মূলত আনফিল্টারড সিগারেট।’

২. অতিরিক্ত ওজন: আপনার উর্বরতা হচ্ছে শরীরের অনেক সিস্টেমের একটি যা জাঙ্ক ফুড খেলে ও ব্যায়াম না করলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। জাঙ্ক ফুড ভোজন ও নিষ্ক্রিয় জীবনযাপন ডায়াবেটিস ও ক্যানসারের মতো রোগের ঝুঁকি বাড়ানো ছাড়াও আপনার উর্বরতাকে নষ্ট করতে পারে। উর্বরতার ওপর ওজন বৃদ্ধিরও নেতিবাচক প্রভাব রয়েছে। পুরুষ ও নারী উভয়ের ক্ষেত্রে, চর্বি যত বাড়বে শরীর তত বেশি ইস্ট্রোজেন উৎপাদন করবে এবং হরমোনের ভারসাম্যহীনতা হচ্ছে উভয়ের বন্ধ্যাত্বের একটি প্রধান কারণ। অতিরিক্ত ওজনের নারীদের ক্ষেত্রে, অতিরিক্ত ওজন ইনসুলিন রেজিস্ট্যান্সের কারণ হতে পারে, যা ডিম্বের কোয়ালিটি এবং ওভিউলেশনের ফ্রিকোয়েন্সি হ্রাস করে। স্থূল পুরুষদের ক্ষেত্রে, অতিরিক্ত ওজন শুক্রাশয়কে অতিরিক্ত তাপে রাখে, যার ফলে শুক্রানুর কোয়ালিটি কমে যায়।

৩. হট ইয়োগা ক্লাস: শুক্রাণু ধ্বংসের একটি কারণ হচ্ছে তাপ। শুক্রাণু উৎপাদন করতে শুক্রাশয়ের তাপমাত্রা শরীরের মূল তাপমাত্রার চেয়ে দুই ডিগ্রী নিচে থাকা উচিত, এর কারণ হচ্ছে শুক্রাশয় শরীরের বাইরে অবস্থিত। যা কিছু শরীরকে গরম করে তা শুক্রাশয়কেও গরম করতে পারে। তাই যদি আপনি বাচ্চা নেওয়ার চেষ্টা করেন, তাহলে হট টাব, হট ইয়োগা, সোনা বাথ, টাইট অন্তর্বাস বা পোশাক সম্পূর্ণরূপে পরিহার করুন। লয়েলো ইউনিভার্সিটি পরিচালিত এক গবেষণা অনুসারে, ল্যাপটপ থেকে আগত তাপও শুক্রাণুর মান হ্রাসের সঙ্গে জড়িত।

৪. অ্যান্টিডিপ্রেস্যান্ট: পুরুষের লিঙ্গ উত্থানের হওয়ার ক্ষমতা হ্রাস করতে পারে এমন ওষুধের একটি লম্বা তালিকা রয়েছে, যা স্ত্রীকে গর্ভবতী করার সামর্থ্যও কমিয়ে দেয়। শুক্রাণুর ক্ষমতা নষ্ট করতে না চাইলে একটি ওষুধের ব্যাপারে বিশেষভাবে সতর্ক থাকার প্রয়োজন হবে। আর তা হলো অ্যান্টিডিপ্রেস্যান্ট। এই ওষুধটি শুক্রাণুর ডিএনএ ড্যামেজ করতে পারে এবং সেক্সুয়াল পারফরম্যান্সও হ্রাস করে দেয়। ওষুধের ক্ষেত্রে নারীরা পুরুষের তুলনায় বেশি নিরাপদ অবস্থানে থাকে। কেমোথেরাপিতে ব্যবহৃত ওষুধের মতো নারীদের ডিম্বণু অধিকাংশ ওষুধের প্রতি প্রতিক্রিয়াশীল হয়ে থাকে। এমন অনেক ওষুধ আছে যা বিকাশমান ভ্রুণের ক্ষতি করতে পারে। যদি আপনি বাচ্চা নেওয়ার চেষ্টা করেন, তাহলে তার মানে এই নয় যে আপনি ওষুধ সেবন বন্ধ করে দেবেন। এ ব্যাপারে আপনি ও আপনার স্ত্রী/স্বামী উভয়েই চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলুন।

৫. কফি: দিনে দুই কাপের বেশি কফি পান শুক্রাণু উৎপাদন ব্যাহত করে। তাই বাবা হওয়ার প্রস্তুতি নেওয়ার আগে কফির অভ্যাস ত্যাগ করা উচিৎ। নারীদের ক্ষেত্রে কফির নেতিবাচক প্রভাব আরো তীব্র, বিশেষ করে যারা ইতোমধ্যে বন্ধ্যাত্বে ভুগছেন। ইউরোপিয়ান সোসাইটি অব হিউম্যান রিপ্রোডাকশন অ্যান্ড এম্ব্রিয়োলজি কর্তৃক পরিচালিত এক গবেষণা অনুসারে, যেসব নারী উল্লেখযোগ্য পরিমাণে কফি পান করেন তাদের গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা ব্যাপকভাবে হ্রাস পায়। আমেরিকান জার্নাল অব অবস্টেট্রিকস অ্যান্ড গাইনিকোলজিতে প্রকাশিত আরো এক গবেষণায় পাওয়া যায়, প্রত্যহ দুই কাপ বা তার বেশি কফি পান করলে নারীর গর্ভপাতের ঝুঁকি দ্বিগুণ হয়।

৬. ভেরিকোস ভেইন: পুরুষদের বন্ধ্যাত্বের প্রধানতম কারণ হচ্ছে অণ্ডকোষের আশেপাশে ভেরিকোস ভেইন হওয়া। কোনো শিরা স্ফীত হয়ে যাওয়াকে ভেরিকোস ভেইন বলে, যা অধিকাংশ ক্ষেত্রে পায়ে দেখা যায়, কিন্তু শরীরের যেকোনো জায়গায় হতে পারে যেমন- যৌনাঙ্গের আশেপাশে। পুরুষদের অণ্ডকোষের ওপর ভেরিকোস ভেইন হলে শিরার বর্ধিত রক্তপ্রবাহ তাপমাত্রা বাড়াতে পারে এবং শুক্রাণুকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। নারীদেরও জেনিটাল ভেরিকোস ভেইন হতে পারে, কিন্তু যৌনসহবাসের সময় ভেরিকোস ভেইন ব্যথা সৃষ্টি না করলে তাদের গর্ভবতী হতে সমস্যা হয় না।

কবিরাজ : তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদিক ঔষধের দ্বারা নারী- পুরুষের সকল জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – খিলগাঁও, ঢাকাঃ। মোবাইল : ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

৭. টিন্ডার হুক-আপ: সবাই জানে যে অসুরক্ষিত বা অনিরাপদ যৌনসহবাস কিছু মারাত্মক যৌনবাহিত রোগ ছড়াতে পারে, যা প্রজনন স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর এবং চিকিৎসা না করালে আপনার জীবননাশও হতে পারে। রোগ হয়েছে তা জানার পূর্বেই কিছু যৌনবাহিত রোগ (বিশেষ করে গনোরিয়া ও ক্ল্যামিডিয়া) প্রজনন ক্ষমতা নষ্ট করে দেয়। অনেক যৌনবাহিত রোগ প্রাথমিক পর্যায়ে প্রকাশ পায় না এবং চিকিৎসা করা না হলে জননাঙ্গে স্থায়ী প্রতিবন্ধকতা ও ক্ষত সৃষ্টি করতে পারে। যৌনবাহিত রোগে নারীর উর্বরতা আরো বেশি ঝুঁকিতে থাকে। যৌনবাহিত রোগ প্রথমেই ফ্যালোপিয়ান টিউব বা গর্ভনালীর ক্ষতি করে এবং এজন্য তাতে ডিম্বাণু প্রবেশ করতে পারে না। উর্বরতা সুরক্ষার জন্য এইচপিভি ভ্যাকসিন দেওয়া উচিত, যা হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলবে।’

Leave a Reply