নাগরিকত্ব আইন নিয়ে ভারতের সেনাপ্রধানের বক্তব্যে বিতর্কের ঝড়

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ) নিয়ে মুখ খুললেন ভারতের সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত। বৃহস্পতিবার (২৬ ডিসেম্বর) দিল্লিতে একটি অনুষ্ঠানে সিএএ নিয়ে তিনি কথা বলেছেন।

সিএএ’র পক্ষ নিয়ে তিনি বলেন, নেতৃত্ব দেওয়া হল, সকলকে এগিয়ে ন‌িয়ে যাওয়া। যখন আপনি সামনের দিকে যাবেন আপনাকে সকলে অনুসরণ করবে। কিন্তু নেতা তারাই যারা মানুষকে সঠিক পথে এগিয়ে নিয়ে যায়।

কবিরাজ : তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদিক ঔষধের দ্বারা নারী- পুরুষের সকল জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – খিলগাঁও, ঢাকাঃ। মোবাইল : ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

তারা নেতা নয়, যারা মানুষকে ভুল পথে চালিত করে। যেমনটা আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে পড়ুয়াদের মাঝে লক্ষ্য করলাম। তারা পুরো দেশের মানুষের কাছে ভুল বার্তা দিচ্ছে। সহিংসতা করতে তারা জনগণকে উদ্বুদ্ধ করছে। এটা নেতৃত্ব নয়।

চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর অবসরে যাবেন বিপিন রাওয়াত। এর আগে এমন বক্তব্যে নতুন করে বিতর্কের জন্ম দিলো।

এদিকে তার বক্তব্যের সমালোচনা করেছেন কংগ্রেস। তার এই বক্তব্যকে অনেক বেশি রাজনৈতিক বলে দাবি করছে তারা।

কংগ্রেসের মুখপাত্র ব্রিজেশ কালাপ্পা এক টুইট বার্তায় জানায়, সেনা প্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়াত সিএএ’র প্রতিবাদ নিয়ে যেসব কথা বলেছেন তা সাংবিধানিক গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে। আজ যদি সেনা প্রধানকে রাজনৈতিক বিষয়ে কথা বলতে দেওয়া হয়, তাহলে তা কাল তাকে সেনা দখলের অনুমতিও দেওয়া হতে পারে।

কবিরাজ : তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদিক ঔষধের দ্বারা নারী- পুরুষের সকল জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – খিলগাঁও, ঢাকাঃ। মোবাইল : ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

সেনা প্রধানের বক্তব্যের সমালোচনা করেছেন হায়দরাবাদের সাংসদ আসাদুদ্দিন ওয়াইসিও। এক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, নেতৃত্ব কারও অফিসের সীমানা জানে না। কোনও প্রতিষ্ঠানের প্রধান হিসেবে তার গুরুত্ব ও অবস্থানও তার জানা উচিত।

উল্লেখ্য, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ) ও নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) নিয়ে উত্তাল পুরো ভারত। দেশটির প্রায় সকল অঞ্চলে নতুন করে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ছে। এপর্যন্ত শুধুমাত্র উত্তর প্রদেশে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে বিশজন বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছে আরও অনেক। এদিকে বিক্ষোভে রাষ্ট্রীয় সম্পদ ক্ষতি করার কারণে ক্ষতিপূরণ চেয়ে আইনি নোটিশ দিয়েছে উত্তর প্রদেশের রাজ্য সরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*