ফলের গুণ তো অসীম কখন খাবেন, কখন খাবেন না… জানেন তো?

0

ওয়ার্কআউটের আদে-পরেও ফল অত্যন্ত উপযোগী। ফল ওয়ার্কআউটের জন্য প্রয়োজনীয় এনার্জি শরীরকে দেয়। ব্যায়ামের পরে শরীরে যে এনার্জির খামতি দেখা দেয়, তা পূরণ করতেও ফলের জুড়ি মেলা ভার। এই সময় জীবন যাপন ডেস্ক: আমাদের প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় সবচেয়ে উপযোগী ও স্বাস্থ্যকর খাদ্যটি হল ফল। যেমন – খালি পেটে জল, ভরা পেটে ফল। কিন্তু সত্যিই কি ভরা পেটে ফল খাওয়া উচিত? আধুনিক বিজ্ঞান কিন্তু অন্য কথা বলছে।

দিনের মধ্যে কখন ফল খাওয়ার সবচেয়ে ভালো সময় এবং কখন মোটেই ফল খাওয়া উচিত নয়, তা নিয়েই আজ আলোচনা করব আমরা।
ফলে প্রচুর পরিমাণে ফিটামিন, মিনারেলস, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস এবং ফাইবার থাকে। তাই সকালে ফলের থেকে ভালো খাবার আর কী হতে পারে? ফল খাওয়ার সবচেয়ে উপযোগী সময় সকাল বেলা। সকালে ফল খেলে এর যাবতীয় গুণ সহজেই শরীরে শুষে যায়। মিড মর্নিং স্ন্যাক হিসেবেও ফল খাওয়া যেতে পারে।

ব্রেকফাস্ট ও লাঞ্চের মধ্য়ে অনেক সময় আমাদের ক্ষিদে পেয়ে যায়। এই সময় অন্য কিছু না খেয়ে ফল খেতে পারেন। ওয়ার্কআউটের আদে-পরেও ফল অত্যন্ত উপযোগী। ফল ওয়ার্কআউটের জন্য প্রয়োজনীয় এনার্জি শরীরকে দেয়। ব্যায়ামের পরে শরীরে যে এনার্জির খামতি দেখা দেয়, তা পূরণ করতেও ফলের জুড়ি মেলা ভার। এবার আসা যাক, কখন মোটেও ফল খাওয়া উচিত নয়, সেই প্রসঙ্গে।

ঘুমোতে যাওয়ার ঠিক আগে ফল খাওয়া ভালো কথা নয়। এর ফলে ব্লাড সুগার লেভেল বেড়ে যেতে পারে। ঘুমোতে যাওয়ার আগে ফল অনিদ্রার সমস্যা দেখা দিতে পারে। অন্য খাবার খেয়েই সঙ্গে সঙ্গে ফল খাবেন না বা ফল খেয়েই সঙ্গে সঙ্গে অন্য কিছু খাবেন না। ফল ও অন্য খাবারের মধ্যে অন্তত ৩০ মিনিটের পার্থক্য থাকা দরকার। ডায়াবেটিকরা খাবার খাওয়ার এক ঘণ্টা আগে বা দু-ঘণ্টা পরে ফল খান।

ওয়ার্কআউটের আদে-পরেও ফল অত্যন্ত উপযোগী। ফল ওয়ার্কআউটের জন্য প্রয়োজনীয় এনার্জি শরীরকে দেয়। ব্যায়ামের পরে শরীরে যে এনার্জির খামতি দেখা দেয়, তা পূরণ করতেও ফলের জুড়ি মেলা ভার। এই সময় জীবন যাপন ডেস্ক: আমাদের প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় সবচেয়ে উপযোগী ও স্বাস্থ্যকর খাদ্যটি হল ফল। যেমন – খালি পেটে জল, ভরা পেটে ফল। কিন্তু সত্যিই কি ভরা পেটে ফল খাওয়া উচিত? আধুনিক বিজ্ঞান কিন্তু অন্য কথা বলছে।

দিনের মধ্যে কখন ফল খাওয়ার সবচেয়ে ভালো সময় এবং কখন মোটেই ফল খাওয়া উচিত নয়, তা নিয়েই আজ আলোচনা করব আমরা।
ফলে প্রচুর পরিমাণে ফিটামিন, মিনারেলস, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস এবং ফাইবার থাকে। তাই সকালে ফলের থেকে ভালো খাবার আর কী হতে পারে? ফল খাওয়ার সবচেয়ে উপযোগী সময় সকাল বেলা। সকালে ফল খেলে এর যাবতীয় গুণ সহজেই শরীরে শুষে যায়। মিড মর্নিং স্ন্যাক হিসেবেও ফল খাওয়া যেতে পারে।

ব্রেকফাস্ট ও লাঞ্চের মধ্য়ে অনেক সময় আমাদের ক্ষিদে পেয়ে যায়। এই সময় অন্য কিছু না খেয়ে ফল খেতে পারেন। ওয়ার্কআউটের আদে-পরেও ফল অত্যন্ত উপযোগী। ফল ওয়ার্কআউটের জন্য প্রয়োজনীয় এনার্জি শরীরকে দেয়। ব্যায়ামের পরে শরীরে যে এনার্জির খামতি দেখা দেয়, তা পূরণ করতেও ফলের জুড়ি মেলা ভার। এবার আসা যাক, কখন মোটেও ফল খাওয়া উচিত নয়, সেই প্রসঙ্গে।

ঘুমোতে যাওয়ার ঠিক আগে ফল খাওয়া ভালো কথা নয়। এর ফলে ব্লাড সুগার লেভেল বেড়ে যেতে পারে। ঘুমোতে যাওয়ার আগে ফল অনিদ্রার সমস্যা দেখা দিতে পারে। অন্য খাবার খেয়েই সঙ্গে সঙ্গে ফল খাবেন না বা ফল খেয়েই সঙ্গে সঙ্গে অন্য কিছু খাবেন না। ফল ও অন্য খাবারের মধ্যে অন্তত ৩০ মিনিটের পার্থক্য থাকা দরকার। ডায়াবেটিকরা খাবার খাওয়ার এক ঘণ্টা আগে বা দু-ঘণ্টা পরে ফল খান।

Leave A Reply