স্ত্রীর জন্য মুসলিম থেকে হিন্দু হয়েও রেহাই নেই!

বিয়ে করার জন্য ধর্ম বদলে হিন্দু হয়ে যান ভারতের ছত্তিশগড়ের তেত্রিশ বছর বয়সী এক ব্যক্তি। পরিবারের অমতে এরপর হিন্দু ধর্মাবলম্বী ২৩ বছর বয়সী এক তরুণীকে বিয়ে করেন তিনি। কিন্তু তাতেও সমস্যা থেকে রেহাই মিলল না ওই ব্যক্তির। পরিবারের চাপে জর্জরিত ওই নবদম্পতি।

তিন বছর আগে ছত্তিশগড়ের বাসিন্দা অঞ্জলি জৈনের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি হয় মোহাম্মদ ইব্রাহিম সিদ্দিকির। ধীরে ধীরে তৈরি হয় ঘনিষ্ঠতা। সিদ্ধান্ত নেন বিয়ে করবেন দুজনে। ইতিমধ্যেই ভিন ধর্মের প্রাপ্তবয়স্ক যুবক-যুবতীর বিয়েকে বৈধ বলে ঘোষণা করেছে ভারতের সর্বোচ্চ আদালত। অঞ্জলিকে বিয়ে করতে নিজের ধর্ম বদল করেন মোহম্মদ ইব্রাহিম সিদ্দিকি। হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করেন তিনি।

কিন্তু ধর্মান্তরের পরেও অঞ্জলির পরিবার ওই যুবককে জামাই হিসাবে মানতে পারেনি। বাড়ি থেকে অন্যত্র বিয়ের জন্য অঞ্জলিকে চাপ দেওয়া শুরু হয়। তাই বাধ্য হয়ে ২৫ ফেব্রুয়ারি ছত্তিশগড়ের আর্যসমাজ মন্দিরে বিয়ে করেন দুজনে। বিয়ের কথা বাড়িতে জানাননি অঞ্জলি। বাড়ি থেকে বেরিয়ে এসে স্বামীর সঙ্গে থাকতে শুরু করেন তিনি।

কবিরাজঃ তপন দেব’এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে নারী ও পুরুষের যাবতীয় গোপন রোগ সহ, যে কোন রোগের চিকিৎসা দেওয়া হয়। এবং দেশেও বিদেশে ঔষধ পাঠানো হয়। যোগাযোগ, ঢাকা খিলগাও, মোবাইল ০১৮২১৮৭০১৭০ ।

অঞ্জলির স্বামীর অভিযোগ, ফেব্রুয়ারি থেকে জুন মাস পর্যন্ত চার মাসের মধ্যে একাধিকবার স্ত্রীর বাপেরবাড়ির লোকজন হুমকি দেয় তাঁকে। দুজনকে আলাদা করে দেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়। এরপর ৩০ জুন পুলিশ তাঁকে তুলে নিয়ে যায়। অভিযোগ, থানায় তুলে নিয়ে গিয়ে চাপ দিয়ে স্বামীর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ রেকর্ডও করা হয়। বেশ কয়েকদিন হোমেই কাটান অঞ্জলি।

পুলিশের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ করেন অঞ্জলির স্বামী। ছত্তিশগড় হাই কোর্টে পিটিশন দাখিল করেন তিনি। হাই কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী হোম থেকে মুক্তি পান অঞ্জলি। আপাতত একসঙ্গে সংসার করছেন দুজনে।

এর আগে একই ঘটনার সাক্ষী হয়েছিলেন কেরালার বাসিন্দা এক হিন্দু তরুণী। মুসলমান ধর্মাবলম্বী এক যুবককে বিয়ে করার জন্য ধর্মান্তরিত হন তিনি। হাজারও সামাজিক সমস্যা পেরিয়ে আপাতত একসঙ্গেই রয়েছেন দুজনে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*